এমাজন এসোসিয়েট এর কমিশন স্লাইস – ইন্ডাস্ট্রি ইম্পেক্ট ও আপনার করনিয়

(আমার অভ্র তে একটু ঝামেলা হচ্ছে, তাই অনেক বানান ভুল, কিছু মনে করেবন না)

গত দুই দিন অনেক অনেক পোস্ট দেখতেসি, কার মন খারাপ, কার রাগ, কেও আপসেট! সাভাবিক। হটাত করে ৩ ভাগ ইনকাম কমে গেলে সাভাবিক।

তবে দুক্ষের কিছু নাই, এইটা দুনিয়ার শেষ না। হয়ত এটাই আপনার ক্যারিয়ার এর নতুন এক অধ্যায় – হয়তো এই পুস টাই দরকার ছিল, আগের চেয়েও বেশী ভাল ভাবে কাজ করার জন্য, নতুন কিছু শিখার জন্য।

এখন এমাজন এর কমিশন এর বেপারে প্রথম কথা – 

এমাজন প্রোজেক্ট যেমন ছিল তেমন এ থাকবে। সাভাবিক ভাবেই – জেহুতু ইনকাম কমে আসছে – নিঃসন্দেহে কস্ট ও কমে আসবে। বেবসা হচ্ছে ইনভেস্ট ও রিটার্ন এর উপর ডিপেন্ড করে। কমিশন এর পারসেন্ট এর উপর খুব বেশী না। 

যদি তাই হত ৫০% ডিরেক্ট কমিশন এর বিপরিত ৫% দিয়ে আমাজন এর মনেটাইজেসন এত পপুলার হত না।

নতুন কমিশন এর পরে যেটা হবে – ইনকাম কমার সাথে সাথে অনেক বড় একটা অংশ এমাজন ভিত্তিক মনেটাইজেসন থেকে সরে আসবে, কম্পিটিশন কমবে – আর এর সাথে সাথে কমে আসবে রাঙ্কিং এর কস্ট।

সত্যি কথা, আমার একটি এমাজন সাইট এ আজকে থেকে হটাত সেল শুরু হইসে! কারন টা সাভাবিক – কম্পিটিসন কমে আসছে – তাই ট্রাফিক বেশি আসতেসে।

ইনকাম ৩ ভাগ কমেছে দেখা দেখা যাবে মানুষ এর এক্সপেন্স ৫ ভাগ কমিয়ে ফেলবে, আর দিন শেষ এ মারকেট নিজে থেকেই এডজাস্ট হয়ে আসবে।

জেই প্রজেক্ট গুলায় অনেক ইনভেস্ট আছে বা করে ফেলসেন – সেখানে খুব একটা প্রফিট হয়ত হবে না, কিন্তু লস হবে না এইটুকু বুঝি। আর নতুন প্রোজেক্ট গুলো তে কম খরচে বেশী ট্রাফিক পাবেন, আগে জেগুলা কিওারড নিয়ে ভাবেন ও নাই, এখন অগুলা রেঙ্ক করে ফেলবেন! আগে ১০০ MSV এর কিওারড এর পিছে জা খরছ হত, দেখা যাবে এখন ৩০০ MSV এর কিওয়াড এর পিছে তা করছ হচ্ছে!

তাই দুঃখ করা বন্ধ করেন!

তবে, একটা ব্যাপার এ সচেতন হয়ে জেতে হবে – এমাজন অ্যাফিলিয়েট মার্কেটার হওা যাবে না। আপনার হতে হবে – আফিলিয়েট মারকেটার।

কেন কারন টা বলি – 

প্রথম এই আপনার বুঝা লাগবে অ্যাফিলিয়েট মারকেটার এর আসল কাজ কি।

অ্যাফিলিয়েট এর মুল কাজ হচ্ছে কাস্টমার তৈরি করা।
এইটা আর একটু বিস্তারিত বুঝতে আপনার কাস্টমার জার্নি বুঝা লাগবে।

ধরেন একজন একটি হাত ঘড়ি কিনবে – উনার জার্নি টা কেমন হতে পারে?

ফেইসবুক এ এড দেখল > ক্লিক করে ডিরেক্ট ওয়েবসাইটী গেল > না কিনে বের হয়ে আসলো > ইয়উটিউব এ আবার একটা এড দেখল > রিভিও খুজা শুরু করলো > আপনার টপ ১০ ঘড়ি এর ব্লগ পোস্ট পেলো > আগের ঘড়ি টা বেশী পছন্দ না হলেও অন্য একটা ঘড়ি আপনার রিভিও দেখে পছন্দ করলো > এমাজন এ পাঠায় দিলেন > কিনে ফেলল!

এখানে দেখেন কাস্টমার এর জার্নি তে ৮ টা স্টেপ আছে। 

আন্ডার লাইন করা স্টেপ টি ধরেন আপনি। আপনার স্টেপ এ দেখেন আপনি কিন্তু অই নতুন ব্রান্ড এর জন্য একটি কাস্টমার তৈরি করে দিলেন। এখানে আপনার ভুমিকা সলিড একজন মারকেটার এর।

এই মডেল টা কে কাস্টমার জার্নি তে – বলে লাস্ট ক্লিক / ডিরেক্ট সেল। 

আপনি চাইলে অই কাস্টমার কে এমাজন এও দিতে পারেন, ডিরেক্ট কোন সাইট ও দিতে পারতেন। কাস্টমার জার্নি তে আপনার অবস্থান সক্ত ও গুরুত্বপূর্ণ। এরকম অবস্থায় আপনার ইনকাম অনেক স্টেবল থাকবে। আর আপনার ইনকাম আপনার ই হাতে থাকবে। আর এরকম সাইট থাকলে কে কত কমিশন কমাল বারাল টেনশন করা লাগবে না।

এখন আর একটা সিনারিওয় দেখেন –  কাস্টমার ডিরেক্ট প্রডাক্ট ই খুজতেসে আপনে কোন ভাবে ওটার উপর রিভিও রেঙ্ক করে ফেলসেন, একটা ক্লিক পেলেন, কুকি প্লেস হওাতে আপনে সেল পেয়েছেন।

অই কাস্টমারর আগে থেকেই ডিটারমাইন কি কিনবে, আপনার আরটিকেল টা কিন্তু কাস্টমার তৈরি করে নাই। আপনে কম্পানির মারকেটিং স্পেন্ড ও ব্রান্ডিং এর কারনে তৈরি হওয়া কাস্টমার কে একটু টেকনিক করে আপনার লিঙ্ক ঘুরিয়ে এমাজন এ পাঠিয়ে দিসেন।

এখানে আপনে কমিশন পেয়েছেন, কিন্তু আপনি কি কাস্টমার তৈরি করেছেন? অথবা এই কাস্টমার কি আপনি কন্ট্রল করতে পারবেন?

এই মডেল টা কে কাস্টমার জার্নি তে বলে “আসিসটেড কনভার্সন”। আপনি সেলসে এ আসিস্ট করসেন, কিন্তু কাস্টমার জেনারেট করেন নাই। 

যারা কাস্টমার তৈরি করতে পারে, ওদের কদর সবজায়গায়, কোন ভাবেই কমিশন কমিয়ে অথবা বারিয়ে কিছু করতে পারবে না – কারন অপসন এর অভাব নাই। কিন্তু আসিস্টেড কনভার্সন এই যদি থাকেন তাহলে একটু কস্ট হয়ে যাবে।

সামনের দিন গুলো আর ও অনেক চেঞ্জ হবে, অনেক কম্পিটিসন হবে, আপনার জন্য আমার ২ টা সাজেসন।

১। কাস্টমার তৈরি করা শিখেন, ইনকাম অনেক স্টেবল হবে। 

২। ট্রাফিক / পটেন্সিয়াল কাস্টমার কে এমাজন ছাড়াও বিভিন্ন উপায়ে মনেটাইজ করা শিখেন।

১ নাম্বার টা তো বললাম ই, এবার আসি দ্বিতীয় পয়েন্ট এ।

কিভাবে এমাজন ছাড়াও আপনার ব্লগ মনেটাইজ করবেন?

গত কাল থেকে বিভিন্ন গ্রুপ এ অনেক অনেক পোস্ট দেখতেসি, যে যার মত মারকেটপ্লেস গুলর নাম দিচ্ছে! ভাই এত মার্কেট প্লেস এ যাওয়ার প্রয়োজন নাই!

আমি আপনাকে ২ টা সহজ স্টেপ বলে দিচ্ছি

১। ডিরেক্ট অফার প্রমট করেন। আপনি এমাজন এ জাই প্রমট করেন – অরধেক এর বেশী তাদের নিজেদের ওয়েবসাইট এ অ্যাফিলিয়েট অফার দিয়ে রাখে। যদি না থাকে – তাহলে সিমিলার কোন প্রডাক্ট পাবেন ই অ্যাফিলিয়েট সহ।

এছারা এই আরটিকেল টি দেখেন – এখানে অনেক গুল ডিরেক্ট হাই পেয়িং অফার লিস্ট করা আছে, জেগুল সহজেই এপ্রুভাল পাবেন, ও কাল কে থেকেই প্রমসন শুরু করতে পারবেন। 

২। নতুন কিছু মার্কেট প্লেস এ একাউন্ট করেন ও এগুলা স্টাডি করেন – আমি কিছু মারকেট প্লেস এর নাম বলে দিচ্ছি – জেগুলা তে ফিজিকাল / দিজিটাল দুইটাই পাবেন।

Wallmart: এমাজন এর কাছা কাছি, মারকেটপ্লেস।

FlexOffers: বাংলাদেশ থেকে সহজেই আপ্রুভাল দিবে, পেয়নিয়ার এ নিতে পারবেন। হাজার হাজার ব্রান্ড আছে এতে! 

Aliexpress: বলার কিছুই নাই, ওনেক ভাল কনভার্ট হয়! 

Jvzoo: ডিজিটাল প্রডাক্ট এ ভরা। পেয়নিয়ার সাপোর্ট করে।

ClickBank: ডিজিটাল ও ফিজিকাল প্রোডাক্ট। বাংলাদেশ থেকে কিভাবে খুলবেন আরটিকেল এর নীচে বলে দিচ্ছি। 

Share-a-sale: এই মারকেট এ নাই এমন কোন ব্রান্ড মনে হয় নাই! অনেক বড় একটা মার্কেট। এমাজন এর বড় ব্রান্ড গুলা এখানে পাবেন।

Rakuten Advertising: সহজে আপ্রুভ করবে। রিটেইল আইটেম অনেক। টপ টেন টাইপ আরটিকেল লিখার জন্য বেষ্ট!

AvantLink: অনেক অনেক বাঙালি কাজ করে, কিন্তু কেও নাম বলতে চায় না এই মার্কেট এর। এতেই বুঝতে পারেন এইটা ভাল একটা মারকেটপ্লেস। 

Market Health: হেলত নিস এর ফিজিকাল প্রডাক্ট এ ভরা! 

Peerfly: অসাধারন সব বিজনেস অফার এই মারকেট এ। কিন্তু সহজে আপ্রউভাল দেয় না। তবে আপনার ভাল সাইট থাকলে পাবেন।

Maxbounty: এইটাও সেইম। অনেক অনেক পে পার লিড অফার এটায়।

Clickbetter: সি পি এ মেক মানি অফার গুলো আছে এই মার্কেট এ। 

—————————

এখন আসি একটি অনেক গুরুত্তপুরন প্রশ্ন তে – বাংলাদেশ থেকে কিভাবে ক্লিক ব্যাংক এ একাউন্ট করবেন? 

ClickBank বাংলাদেশ থেকে সহজে একাউন্ট দেয় না, আর বেশীরভাগ মার্কেট এ বাংলাদেশ শুনলে সহজে আপ্রুভাল দিবে না। আপনি হয়তো বিদেশে মামা চাচা অথবা বন্ধু আছে, একটা বেবস্থা করতে পারবেন কিন্তু এভাবে বেবসা করে কি শান্তি পাবেন?

শান্তি মত, ঠাণ্ডা মাথায়, একাউন্ট ব্যান খাওার ভয় ছাড়া, ও সহজে সব মার্কেট এ আপ্রুভাল পাওয়ার জন্য আপনার কিছু জিনিষ লাগবে – 

  • একটি আমেরিকান কম্পানি 
  • ব্যাংক একাউন্ট
  • আমেরিকান আড্রেস
  • পেপাল
  • EIN (এটি হছে কম্পানি আইডেন্টিফিকেসন নাম্বার, SSN এর বদলে এইটা কাজ করে )


এই সব গুলো আপনরা https://jumpstartfilings.com/  এই ওয়েবসাইট থেকে করে নিতে পারবেন।

$249 এ প্লাস প্যাকেজ টি নিলেই হয়ে যাবে। 

JUMP50 এই কুপন কোড দিলে ২০% ডিস্কাউন্ট পাবেন – $200 এর মত পরবে টোটাল এক বছর এর জন্য।

এতে আপনি পাবেন – 

  • Certificate of Formation
  • Name Availability Search
  • Phone & Email Support
  • Online Document Access
  • Registered Agent
  • Operating Agreement
  • U.S Address & Mail Forwarding
  • Banking Resolution
  • Employer ID Number (EIN)
  • U.S Bank Account

বিস্তারিত জানতে পারবেন ও কিভাবে কম্পানি খুলবেন জানতে পারবেন এই ভিডিও তে – https://jumpstartfilings.dubb.com/v/outZjC

একটা ব্যাপার বুঝা লাগবে – আমি সাজেশন দিচ্ছি এইটা আপনার জন্য ভাল হবে, তবে ওপেন করা না করা আপনার ব্যাপার, এবং এখানে আমার কোন দায়ভার নাই কারন এটা আমার কম্পানি না। তবে আমি কথা বলেছি, যাচাই করেছি, ভাল।

আমি সাজেস্ট করবো আপনি ওদের লাইভ চ্যাট এ কথা বলেন, যত প্রশ্ন করেন, সব জেনে নেন, শান্তি হলে এর পরে বুঝে শুনে ওপেন করেন।

তবে একটি কম্পানি থাকলে, US ব্যাংক একাউন্ট থাকলে, US আদ্এড্রেস থাকলে, সব দিক দিয়ে সুবিধা হয়ে যাবে।

আপনি অন্য যে কোন আমেরিকান কম্পানি যা সুবিধা ভোগ করে, আপনে সেই সব সুবিধাই পাবেন।

আমি আবার পাঁচ বছর পুরানো এই ব্লগ টা জেহুতু চালু করেছি, এখন থেকে আবার লিখবো। আর আপনার ভালও লাগলে অবশ্যই শেয়ার করবেন আরটিকেল টি।

কিছু জানার থাকলে কমেন্ট এ দিয়েন।

ধন্যবাদ
রিফাত

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •